Parc-Ex Celebrate 142nd Canada Day 2009 with barbecue

Every year in the first of this July have been quite busy one in Parc Extension, with Canada Day Celebration venues at Gare Jean Talon Parc.

The National Bangladeshi-Canadian Council (NBCC) host 142nd Canada Day Celebration on July 1st with a free barbecue at the Jean Talon (Old train station) (front of Loblaw's) for district residents.slide-28Hundreds came; big and small, and lined up to enjoy a halal  BBQ hot and Indian samucha and sweet generously offerd by, Parc-Ex South Asian Seniors Association while others took part in the various activities for children and adult. But the main attraction was undoubtedly the huge red-and white cake (the color of the national flag) which was cut up by city celebration coordinator and host organization president Monir Hossain along with President, PEYO Mr. Perry Celcey and coordinator Losirs du Parc Mr. Nelson Osse. surround by hundreds of children and served to the crowd in mid-afternoon. Joined by local Papineau MP Justin Trudeau and Borough mayor Anny Samson, Councilor Mery Deros , local police station-33 commander Andre-Guy Lamothe and  representative by MNA Gerry Sklanvonus.

It's the biggest Canada Day party in multicultural Canadian communities at Parc-Extension Montreal. Thousands of people attended with their children's dressed in red and white with traditional costume crowded onto the lawns in Gare Jean Talon parc Canada flags fluttered in the wind while children singing on live Canada national anthem.
There was live music with free hot dog barbeque event many youngsters art and Canada quiz competition was the major attraction. For woman musical pillow pass and  for the man water melon eating competition draw many attractions.slide-3Late afternoon cultural dance show played by Kattiarni Adhikari group.

Parc-Extension celebration was officially recognize by the Ministry of Heritage Canada and helped by local organization Loisirs du Parc, City of Montreal (VSP), Loblaw's, Phermacy Spiro Koutsouris, Color Craft, Autor du Mound,  Parc Ex Souith Asian Senior Association. Pragati, Journal Dhaka Post.

কানাডা গভঃ সহ স্থানীয় সংগঠনের সহায়তায় মন্ট্রিয়লে ন্যাশন্যাল বাংলাদেশী-কানাডিয়ান কাউন্সিলের উদ্যোগে মন্ট্রিয়লে ১৪২ তম কানাডা ডে উদযাপন 

মন্ট্রিয়ল ১ জুলাই, নিজস্ব প্রতিবেদন : গত ১ লা জুলাই পালিত হলো কানাডার ১৪২ তম জন্মদিন। এবারের কানাডা ডে উদযাপনটি মন্ট্রিয়ল বাংলাদেশী কমিউনিটি সহ পার্ক-এক্সটেনশনে বসবাসরত ভারত, শ্রীলংকা, পাকিস্তান, গ্রীক, ইটালিয়ান, তুর্কি,মরক্কো, আলজেরিয়া ও আফ্রিকান কমিউনিটি সহ নতুন প্রজন্মদের কানাডা প্রেমীদের জন্য ছিল সত্যিই আনন্দদঘন মুহুুর্ত এবং আমাদের slide-39নতুন প্রজন্মের জন্য ছিল সত্যিকার অর্থেই যেন নতুন কোন কিছুর আবিস্কর! বিশেষ করে বাংলাদেশী-ক্যানেডিয়ানরা স্ব^পরিবারে অংশগহন করে সমগ্র অনুষ্ঠানটিকেই সার্থক করে তুলে এবং কানাডার মূল সংস্কৃতির সাথে নিজেদের ভবিষ্যত প্রজন্মদের নতুন দিগন্ত রচনা করার আশ্বাস দিয়ে একটি সময়পোযোগী দায়িত্ব পালন করে সকল মহলেরই প্রশংসা কুড়িয়েছে। পার্ক-এক্স কানাডিয়্রান নাগরিকদের এই উদ্যোগ বিশেষ গুরুত্ব সহকারে কানাডার প্রধান নিউজ সংস্থা সিটিভি টেলিভিশন, এবং স্থানীয় মুলধারার পত্র পত্রিকায় ফলাও ভাবে প্রচার করে।
ব্যাপক ভাবে উদযাপনটিকে সমগ্র কানাডাবাসীর কাছে সংবাদ মাধ্যমে ”কানাড ডে কেক কাটার পর্বটি প্রচারণায় তুলে ধরে আমাদের বাংলাদেশ কমিউনিটির এমন একটি উদ্যোগের জন্য বেশ প্রশংসা করেন। এবং মাল্টি কমিউনিটির ছোট ছোট নতুন প্রজন্মের ব্যাপক অংশগ্রহন দেখে উপস্থিত সকলেই প্রসংশা করেন। ছোট এবং বড়দের গালে মপেল রীফের টাট্টু লাগানোর হিড়িক ছিল দেখার মতো।
এই দিনটি উদযাপনে আয়োজক সংগঠন এন.বি.সি.সি স্থানীয় বিভিন্ন সংগঠন এবং প্রশাসনের সাথে সমন্বয় রেখে সপ্তম বারের মত মন্ট্রিয়লের বাঙালি এবং মাল্টি কমিউনিটি অধ্যুষিত এলাকা পার্ক-এক্স কানাডা ডে-২০০৯ অনুষ্ঠানটিকে সার্থক ভাবে উদযাপন করে বিভিন্ন মহলের ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে।
গত ১লা জুলাই মন্ট্রিয়লের পার্ক এক্স -এর লবলজের বিশাল প্রান্তে— হাজার হাজার সকল বর্ণ এবং জাতির মিলন মেলার উৎসবে পরিনত হয়। পার্ক-এক্স সহ মন্ট্রিয়লের বিভিন্ন অঞ্চলের ব˚ গন্যমান্য ব্যক্তিদের পদচারণায় উৎসবটি যেন ভিন্ন মাত্রা পায় এবং হৈচৈ করে সারাদিন
ব্যাপি উদযাপন করা হয় ১৪২তম কানাডা ডে।
ন্যাশনাল বাংলাদেশী ক্যানাডিয়ান কাউন্সিল (এনবিসিসি) এবং, লোয়াজীর দ্যে পার্ক বিশেষ সহযোগিতা এবং ডিজে জন ববির পরিচালনায় বাংলা হিন্দি এবং কানাডিয়্যান সংগীতের তালে উৎসবস্থল হয়ে উঠে আরো প্রানবন্ত। প্রয়াত পপ কিং মাইকেল জেকসনের কথা স্মরন করে তার বহু গান বাজানো হয়।
প্রায় শতাদিক ছোট মনি ও কিশোর কিশোরীদের নিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় কানাডার জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে এই দিনের অনুষ্ঠানর শুরু“ হয়। এরপর ছোট মনিদের সাথে নিয়ে পার্ক এক্স কানাডা ডে’র ব্যবস্থাপক মনির হোসেন বাবলু কানাডা ডে কেক কেটে উৎসবের সূচনা করেন।
একদিকে গানের মূর্ছনা আন্যদিকে হটডগের দীর্ঘ লাইন এবং ছোট ছেলেমেয়েদের চিত্রাঙ্কন ও কানাডা কুইজ পর্বের প্রতিযোগিতা আর চারিদিকে বিশাল আকারের কানাডা পতাকা এবং ছোট বড় সকলের হাতেই লাল মেপেল পাতার পতাকার বাণী, ছোটদের হাতে লাল সাদা বেলুন আর গালে মেপেল লিফের টাট্টু সত্যিকার অর্থেই পার্ক-এক্স কে করে তুলে কানাডার একটি প্রকৃত অংশিদার। সবকিছু মিলিয়ে অপুর্ব একটি পরিবেশ তৈরী হয়।
উপস্থিত অনেকই এই ধরনের একটি পরিকল্পনা বিগত বছরগুলোতে নেয়ার জন্য বাংলাদেশ কমিউনিটির সংগঠন এন.বি.সি.সির উদ্যোগকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান এবং আগামী বছরের একই দিনে এই দিবসটিকে আরো বৃহৎ করে পালন করার জন্য সর্বাত্বক সহায়তা দেয়ার আশা বাক্ত করেন।slide-25অনুষ্ঠানে বিপুল সংক্ষক ছোট মনি ও কিশোরসহ বিভিনন্ন কমিউনিটির নাগরিকদের সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন পাপিনো রাইডিং এর কানাডা পার্লামেন্ট সদস্য ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী পুত্র এবং এ সময়ের তরু ন ক্রেজ জাস্টিন ট্রুডো, পার্ক-এক্স ভিলারী সেন্ট মিশেল মেয়র এনি সেমসন ও পার্ক এক্স সিটি কাউন্সিলর মেরি ডেরস ও লরিয়ে-ডরিয়ন এমএনএ প্রতিনিধি জর্জ সকলেই তাদের সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দিনটিকে সকল কমিউনিটি স্বমন্বয়ে উদযাপনের উদ্যোগ নেয়ার জন্য ন্যাশনাল বাংলাদেশী-ক্যানেডিয়্যান কাউন্সিকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান।

চেইন ষ্টোর লবলজ, ফার্মেসি স্পিরো কুটসোরি (লবলজ) এবং সিটি অফ মন্ট্রিয়ল, পুলিশ ষ্টেশন-৩৩ বিশেষ সহযোগিতায় বর্ণাঢ্য এ দিনের অনুষ্ঠানে ছোটদের কানাডা ডে শীর্ষক চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগীতা ও কানাডার ইতিহাসের উপর কানাডা কুইজ অনুষ্ঠিত হয়।
এ দিনের অনুষ্ঠানে ছোটদের কানাডা ডে শীর্ষক চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা ও কানাডার ইতিহাসের উপর কানাডা কুইজ দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। ছোটরা তাদের তুলিতে এবং কলমে কানাডা ডে’র অভিব্যাক্তি ফুটিয়ে তুলে পুরস্কার অর্জন করেএবারের বিশেষ আকর্ষন ছিল ছোটদের জন্য স্খানীয় পুলিশ সংস্থ্যার কর্মকান্ড এবং তাদের অপারেশন গাড়ীর ভিতর প্রদর্শন এবং ফায়ার ওয়ার্কস। রাত সাড়ে নয়টায় ফায়ার ওয়ার্ক শুরু হলে ব্যাপক উৎসাহ নিয়ে সকলেই প্রথমবারের মতো পার্ক- এক্সে আতশবাজীর খেলা উপভোগ করেন। slide-12কানাডা ডে উৎসব-২০০৯ পার্ক-এক্স আয়োজক সংগঠনের পক্ষ থেকে বিগত বছরের কানাডা ডে উদযাপনে বিশেষ সহযোগিতা দেয়ার জন্য এ বছর উদযাপনকে বিশেষ সহযোগিতা দেয়ার জন্য লবলজ সুপার মার্কেট কর্তপক্ষকে বিশেষ সন্মান পত্র প্রদান করা হয়।
অনুষ্ঠানটি সফল করে তুলতে যে সকল কমিউনিটি সংগঠক সর্বত্মক সহায়তা করেছেন তারা হলেন, লোয়াজী দো পার্ক, লবলজ সুপার মার্কেট , স্পিরো কুতসুরি ( ফার্মাসিষ্ট লবলজ ), জোর্নাল ঢাকা পোস্ট, জামাল নাসের ( রিগালো গিফ্ট সপ)) সিটি অফ মন্ট্রিয়ল, পার্ক এক্স সিনিয়র এসোসিয়েশন, মার্শে ইস্ট ওয়েস্ট।
অনুষ্ঠানে সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন মনির হোসেন(বাবলু), নাজিয়া ইসলাম, ,হাসান সেন্টু, আফজাল টিটু, জামাল নাসের, শামসাদ আরা রানা, মুসা মোহাম্মদ, এবং স্টিভ ও জন ববি। ভলান্টিয়ার সহায়তায় ছিলেন নেলসন ওজে , সামিহা হোসেন , জুবায়ের, সহ একদল কিশোর এবং উদিয়মান ক্যানেডিয়্যান প্রজন্ম দল, আশফাক ও তাদের দল যাদের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং আতিথেয়তা সকল আগতদের দৃষ্টি আকর্ষন করে। অনুষ্ঠান শেষে এনবিসিসির সভাপতি এবং কানাডা ডে-২০০৯ উৎসব পার্ক-এক্স এর কো-অর্ডিনেটর মনির হোসেন সকলকে ধন্যবাদ জনিয়ে আগামীতেও এইদিনটি আরো ব্যাপকভাবে পালনের আশা প্রকাশ করেন এবং সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।